• সারাদেশ

    আমি একা পারছিনা

      কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধিঃ ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২২ , ৮:১৩:০২ প্রিন্ট সংস্করণ

    আমি একা পারছিনা

    তাড়াইল উপজেলার তালজাংঙ্গা ইউনিয়ন স্বাস্থ্য পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রের ৫জন কর্মকর্তা কর্মচারীর মধ্য আজ বিগত ২বছর যাবত একজন কর্মকর্তাই সব দায়িত্ব পালন করছেন। বলতেও লজ্জাবোধ হচ্ছে অফিসিয়াল নিম্নমানের কাছ থেকে শুরু করে সবকিছু করছে।

    কখনো এমএলএসএস কখনো ফার্মাসিস্ট আবার কখনো প্রসূতি গর্ভবতী মহিলাদের চিকিৎসা দিতে বাধ্য হচ্ছেন। একদম অজপাড়া গায়ের মফস্বল এলাকা বললেই চলে জেলা হাসপাতাল এবং সদর হাসপাতালের দূরত্ব থাকায় গ্রামের বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত রোগীরা প্রতিদিন এখানে ভিড় জমাচ্ছেন ডাঃ মনিরুল ইসলাম ভূঁইয়া উপসহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসারের কাছে।

    আমাদের জানিয়েছেন দীর্ঘ ২বছর ধরে এই কষ্ট ভোগ করছেন এবং প্রতিদিন ১৪০ থেকে ১৬০ জন রোগী যা খাতায় এন্ট্রি করে চিকিৎসা প্রদান করেন, নিয়মিত ঔষধ বিতরণ করতে হচ্ছে।

    এর মধ্য গ্রামীণ পর্যায়ের কিছু শ্রেণীর লোক অনেক সময় তাকে হুমকি ধমকি হেনস্তাও করছে। সবকিছু মিলিয়ে ডাঃ মনিরুল জানিয়েছেন আমি আর পারছিনা রীতিমতো হিমশিম খাচ্ছি। তালজাংঙ্গা ইউনিয়ন স্বাস্থ্য পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রে একজন এমবিবিএস ডাক্তার থাকার কথা অথচ এই পদটি শূন্য রয়েছে অনেকদিন ধরে ডাক্তার নেই। থাকার প্রয়োজন একজন ফার্মাসিস্ট একজন এমএলএসএস প্রয়োজন একজন নাইটগার্ড এই পোস্টগুলোর কোন লোকে এখানে নেই।

    সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নিকট প্রশ্ন হচ্ছে একজন মানুষ কি করে তার নিজের কার্যক্রমের পাশাপাশি বাকি ৪জনের কাজ দুই বছর করে আসছে? কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি ডাক্তার মনিরুল ইসলাম ভূইয়াকে অফিসিয়াল এই বীভৎস জীবন থেকে বাঁচাতে। আপাতত একজন ফার্মাসিস্ট ও এম এল এস এস হলেও তালজাঙ্গা ইউনিয়ন স্বাস্থ্য পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রের চিকিৎসা সেবার মান উন্নয়ন হবে। উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি বিষয়টি সু- দৃষ্টিতে খতিয়ে দেখার জন্য।